বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:৩৭ অপরাহ্ন

জরুরী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি:
কুষ্টিয়া পোস্ট ডট কমের জন্য সারা দেশে জরুরী ভিত্তিতে বিভাগীয় প্রধান, জেলা, উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা career@kushtiapost.com ইমেইল এ সিভি পাঠাতে পারেন।
সংবাদ শিরোনাম :
রোনালদোর গোলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে আল নাসর টিপু-প্রীতি হত্যা মামলায় অভিযোগ গঠন শুনানি পিছাল জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশনের নবীনবরণ ও বিতর্ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হলিউডে অভিষেক হচ্ছে ওবামাকন্যা মালিয়া পঞ্চগড়ে মানসিক ভারসাম্যহীন নারীর মরদেহ উদ্ধার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: রাতে মাঠে নামছে রেনে-এসি মিলান প্রধানমন্ত্রীকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন রাজবাড়ীতে ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার পথে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা পাবনায় অটোরিকশা-প্রাইভেটকারের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৫ এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের অবসরভাতা দিতে সময় বেঁধে দিল হাইকোর্ট

চিলমারীতে হলুদ ফুলের গালিচায় স্বপ্ন বুনছেন কৃষকরা

চিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

কুড়িগ্রামের চিলমারীতে আমন ও বোরো ধান চাষের মাঝামাঝি অল্প সময়ে স্বল্প খরচে সরিষা চাষ করে অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতার ব্যাপক সম্ভাবনা বাড়তি ফসল হিসেবে সরিষা চাষে ঝুঁকছেন প্রান্তিক কৃষকরা।

কৃষি বিভাগের প্রণোদনার বীজ ও সার দিয়ে জমিতে রোপণ করা সরিষা মাস খানেকের মাথায় কৃষকের ঘরে উঠতে শুরু করবে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলনও আশানুরূপ হবে বলে জানান উপজেলা কৃষি বিভাগ।

কৃষি অফিসের তথ্য মতে, এ বছর উপজেলায় সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ হাজার ৬শত ৯ হেক্টর জমিতে। তবে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী অর্জিত হয়েছে ১হাজার ৬শত ১০ হেক্টর জমিতে। কৃষি বিভাগ থেকে বারী-১৪,১৫,১৭ এই তিন জাতের বীজের দেওয়া হয়েছে কৃষকদের।

সরিষা চাষি উপজেলার রমনা ইউনিয়নের ফরহাদ হোসেন বলেন, আমন ধান কাটার পর এক বিঘা জমিতে কৃষি বিভাগের দেয়া প্রণোদনার বারী-১৪ উচ্চ ফলনশীল জাতের সরিষা চাষ করেছেন, তার এক বিঘা জমিতে প্রায় ৫ থেকে ৬ মণ সরিষা ফলন হবে, যার মনপ্রতি বাজার মূল্য ২৫০০ থেকে ২৬০০ টাকা। সরিষার ঘরে তুলে একই জমিতে তিনি বোরো ধান রোপণ করবেন।

পাত্রখাতা এলাকার কৃষক রবিউল ইসলাম বলেন, আমন ও বোরো ধানের মাঝামাঝি অল্প সময়ের মধ্যে সরিষা চাষ করা হয়, এতে করে একই জমিতে তিনটি ফসল ঘরে উঠে এবং বাড়তি আয়ের মুখ দেখা যায়। এই অল্প সময়ে সরিষা চাষে বাড়তি আয়ে সংকট কাটিয়ে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন তিনি।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম জানান, গত বছরের তুলনায় এবার সরিষা চাষের প্রতি কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে। আমরা কৃষি অফিসের নির্দেশনায় প্রতিনিয়ত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে আসছি এবার সরিষার চাষে আশানুরূপ ফলন হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কুমার প্রণয় বিষাণ দাস বলেন, এই বছর ১হাজার ৬শত ৯ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে যার মধ্যে, অর্জিত হয়েছে ১হাজার ৬শত ১০ হেক্টর জমিতে। তিনি বলেন বর্তমানে দেশে ভোজ্য তেলের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় সরিষার চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমরা কৃষি অফিস থেকে ২ হাজার ১শত কৃষকের মাঝে প্রণোদনার বীজ ও সার বিতরণ করেছি।

আশা করছি এবার সরিষার ফলন ভালো হবে এবং কৃষকরা লাভের মুখ দেখবে। আগামীতে সরিষা চাষ এই উপজেলায় আরো বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করেন এই কর্মকর্তা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Crafted with by Softhab Inc © 2021
error: আমাদের এই সাইটের লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা যাবে না।