বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৫৭ অপরাহ্ন

জরুরী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি:
কুষ্টিয়া পোস্ট ডট কমের জন্য সারা দেশে জরুরী ভিত্তিতে বিভাগীয় প্রধান, জেলা, উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা career@kushtiapost.com ইমেইল এ সিভি পাঠাতে পারেন।
সংবাদ শিরোনাম :
রোনালদোর গোলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে আল নাসর টিপু-প্রীতি হত্যা মামলায় অভিযোগ গঠন শুনানি পিছাল জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশনের নবীনবরণ ও বিতর্ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হলিউডে অভিষেক হচ্ছে ওবামাকন্যা মালিয়া পঞ্চগড়ে মানসিক ভারসাম্যহীন নারীর মরদেহ উদ্ধার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: রাতে মাঠে নামছে রেনে-এসি মিলান প্রধানমন্ত্রীকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন রাজবাড়ীতে ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার পথে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা পাবনায় অটোরিকশা-প্রাইভেটকারের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৫ এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের অবসরভাতা দিতে সময় বেঁধে দিল হাইকোর্ট

কুষ্টিয়ায় ট্রিপল মার্ডার মামলায় এএসআই সৌমেন রায়ের মৃত্যুদণ্ড

কুষ্টিয়ায় বহুল আলোচিত মা ও শিশু সন্তান সহ ট্রিপল মার্ডার মামলায় একমাত্র আসামি এএসআই সৌমেন রায় (৩৭) কে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

১১ ফেব্রুয়ারি, রবিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রুহুল আমিন এ রায় ঘোষণা করেন।

তবে রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত এএসআই (বরখাস্ত) সৌমেন রায় পলাতক ছিলেন। সে মাগুরা সদর উপজেলার কুচিয়ামোড়া ইউনিয়নের আসবা গ্রামের সুনীল রায়ের ছেলে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০২১ সালের ১৩ জুন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কুষ্টিয়া শহরের কাস্টমস মোড়ে নাজ ম্যানশন মার্কেটের বিকাশের দোকানের সামনে পরকীয়া সম্পর্কের জের ধরে স্ত্রী আসমা খাতুন (৩০) ও তাদের শিশু সন্তান রবিন (৬) এবং আসমা খাতুনের পরকীয়া প্রেমিক শাকিলকে (২৩) সরকারি কাজে ব্যবহৃত পিস্তল দিয়ে গুলি করে হত্যা করে এএসআই সৌমেন রায়।

এ ঘটনায় কুষ্টিয়া মডেল থানায় নিহত আসমা খাতুনের মা হাসিনা বেগম বাদী হয়ে ট্রিপল মার্ডারের একমাত্র আসামি এএসআই সৌমেন রায়কে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নিশিকান্ত সরকার তদন্ত শেষে আসামির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। দীর্ঘদিন সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে আদালত আজ এ রায় ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য, সৌমেন রায় ২০১৫ সালে পুলিশ কনস্টেবল থেকে এএসআই পদে পদোন্নতি পান। পরে ২০১৬ সালে কুষ্টিয়ার কুমারখালী থানায় যোগ দেন। সেখান থেকে মিরপুর থানার হালসা ক্যাম্প, বাগেরহাট থানা সহ বিভিন্ন থানা ও ক্যাম্পে কর্মরত ছিলেন। সর্বশেষ খুলনার ফুলতলা থানায় কর্মরত ছিলেন তিনি। সেখান থেকে কুষ্টিয়ায় এসে তিনি হত্যাকাণ্ড ঘটান।

কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী বলেন, কুষ্টিয়া সদর থানায় দায়ের করা চাঞ্চল্যকর ট্রিপল মার্ডারে জড়িত অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য সৌমেন রায়ের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। তবে তিনি উচ্চ আদালত থেকে ২০২৩ সালের ৬ নভেম্বর ৬মাসের অন্তবর্তীকালীন জামিন পেয়ে অদ্যাবধি পলাতক রয়েছেন দণ্ডপ্রাপ্ত সৌমেন রায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Crafted with by Softhab Inc © 2021
error: আমাদের এই সাইটের লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা যাবে না।